এই যে হিয়া থরোথরো

চারজন বন্ধু পেলাম হোস্টেলে। ওড়িশার অমিত, দূর্গাপুরের চন্দন, করাচীর আয়েষা আর পুণার সুমিত্রা। কি করে হলো জানিনা। আমরা পাঁচজন বন্ধু হয়ে গেলাম। বিপদে আপদে আনন্দে দুঃখে পাঁচজনে মিশে মিশে রইলাম সেই ২০১৫ থেকে।

তারপর ডিপার্টমেন্টে দেখা হলো হাওড়ার অনিন্দ্য আর ভুবনেশ্বরের অঞ্জনের সাথে। নেপাল থেকে এসেছিল আনন্দ। সপরিবারে সে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছেই থাকে। সে মাঝে মাঝেই নেমন্তন্ন করে মোমো খাওয়াতো। আর সন্ধ্যে জুড়ে আড্ডা হত।

অনিন্দ্যদের বিল্ডিং-এ থাকত গোখেলের ছাত্রী অন্বেষা। ছবি আঁকতে, ছবি তুলতে ভালবাসে। অন্বেষার কাছের ফ্ল্যাটে সিঙ্গুরের কম্পিউটার সায়ন্টিস্ট রক্তিম তার শিবরাম চক্কোত্তি সম সেন্স অফ হিউমার নিয়ে বিরাজমান। একই বিল্ডিং-এ থাকত মুম্বাই-এর রুমা, কলকাতা (নাকি ব্রুনাই-এর) সোমদত্তা। এটা হচ্ছে বাঙালিদের গ্যাঙ। এরা সব্বাই মিলে আমার আইবুড়ো ভাত করেছিল। বাঙালিদের আড্ডায় প্রাণপণে বিয়ার খেয়ে বেসুরে রবীন্দ্রসঙ্গীত গাওয়া চলে। এই সুখটা আবার কবে কোথায় পাবো জানিনা।

তারপর তো বছর দুয়েকবাদে সেই গ্যাঙে জুটল দিল্লী স্কুল অফ ইকনমিক্সের ছাত্র অমিতাভ। রান্নায় বিশ্বকর্মা, সঙ্গীত, কাব্যে তুখোর জমাটি বঙ্গসন্তান। এক লহমায় কফি হাউস বা একাডেমিকে সে আমার ভিনদেশি উঠানে নিয়ে এলো।

বাঙালিদের মধ্যে আমি আরো দুই বন্ধু পেয়েছিলাম। এরা ঠিক বঙ্গ ব্রিগেডে জুটত না। কিন্তু পৃথক ভাবে এঁদের বন্ধুতা ছিল অনবদ্য। ‘চল হেঁটে আসি’ বললে এরা জুটে যেত হাসতে হাসতে। বায়োলজি ডিপার্টমেন্টের অমৃতা আর ফিজিক্সের নন্দিনী। অমৃতার সাথে মাঝে সাঝে বিয়ারে কফিতে আড্ডা মিশত। নন্দিনী আসত মায়ার্স হাউসে। বা চন্দনের সাথে (চন্দনও ফিজিক্সের ছাত্র)। পরবর্তীকালে নন্দিনীর সাথে কলকাতাতেও দেখা হয়েছে।

এত মানুষের মধ্যে কাশ্মীরের প্রমিতাকে ভুললে হবে না। যে ‘পথের পাঁচালী’ দেখতে দেখতে কেঁদে ফেলেছিল। প্রমিতা বাচ্চা মেয়ে। খুব সংবেদনশীল। পরবর্তীকালে ওর প্রণয়ের ঘটকালিও আমিই করেছিলাম।

সর্বোপরি ছিল টেনিসির টমাস। সে আসত ক্যাফেতে। পরে আমার বিয়েতেও এসেছিল। টমাস হচ্ছে এমন বন্ধু যার নাম না জেনেই তার সাথে আমি প্রায় দুমাস আড্ডা দিয়েছিলাম। নাম জেনেছিলাম বিয়ের নেমন্তন্ন করার সময়। তাও কার্ডে নাম লিখতে গিয়ে।

নয় নয় করেও এত গুলো বছরে এত গুলো মানুষ জমে গেল জীবনে। আজ যখন সব গুটিয়ে দেশে ফিরছি, মনটা হু হু করে উঠছে।

(নাম পরিবর্তিত)

Leave a comment

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: