ক্রিট দেশের রাজা বল্লেন, একটা মস্ত জেলখানা চাই। দায়দালুস তো বিশ্বকর্মা। রাজার হুকুম মত সেই বানালে এক গভীর সুড়ঙ্গের মধ্যে দুর্ভেদ্য কারাগার। কিন্তু ভাগ্যের কি পরিহাস! রাজা সেই দায়দালুসকেই কারাগারে বন্দী করে রাখলে। নিজেরই বানানো জেলখানায় বন্দী হলেন দায়দালুস। সাথে তার ছেলে ইকারাস।

পিতা পুত্র মুক্তির জন্য ছটফট করেন রাতদিন। স্বাধীনতা স্বাধীনতা! দায়দালুস ছেলেকে বললে, ‘চিন্তা করিস না বাপধন। আমি মোম দিয়ে এক আশ্চর্য পাখনা বানিয়ে দেব। তারপর এই কারাগার থেকে স্বাধীনতার আকাশে উড়ে যাব।’

ইকারাস তরুণ। শৃঙ্খল তার অসহ্য। সে মুক্তির জন্য ব্যাকুল হয়ে উঠল। দায়দালুস বললে, ‘দেখিস, খুব উঁচু দিয়ে উড়িস না যেন। সূর্যের প্রখর তাপে মোমের পাখনা গলে যাবে।’

ইকারাস কিন্তু বাবার কথা রাখতে পারেনি। স্বাধীনতার আনন্দে সে উঁচুতে, আরো উঁচুতে উড়ে গেছে। আর তারপর সূর্যের তাপে তার পাখনা ছিন্ন হয়েছে। সে উল্কার মত নিক্ষিপ্ত হয়েছে সাগর জলে। যেন স্বাধীনতার প্রতিস্পর্ধাই ঝাঁপ দিয়েছে সমুদ্রে।

১৯১৬ সালে সুভাষ বসু আর অনঙ্গ দাস প্রেসিডেন্সী থেকে বিতাড়িত হন। ইতিহাসের অধ্যাপক ওটেন সাহেব সম্ভবত ভারতীয় ছাত্রদের অপমান করে ক’টা কথা বলেছিলেন। সুভাষ গায়ে হাত তুলেছিলেন কিনা তার প্রমাণ নেই। তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হয়নি।

প্রায় তিরিশ বছর পর, সুভাষের মৃত্যু সংবাদ কাগজে ছাপা হলো। বিমান দুর্ঘটনায় নাকি মারা গেছেন পরাধীন দেশের রাজবিদ্রোহী। তাইহোকুর আকাশেই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে তার দেহ।

অধ্যাপক ওটেন ঠিক তার পর পরই একটা কবিতা লিখেছিলেন।

Did I once suffer, Subhas, at your hands?
Your patriot heart is stilled, I would forget!
Let me recall but this, that while as yet
The Raj that you once challenged in your land
Was mighty; Icarus-like your courage planned
To mount the skies, and storm in battle set
The ramparts of High Heaven, to claim the debt
Of freedom owed, on plain and rude demand.
High Heaven yielded, but in dignity
Like Icarus, you sped towards the sea.
Your wings were melted from you by the sun,
The genial patriot fire that brightly glowed
In India’s mighty heart and flamed and flowed
Forth from her Army’s thousand victories won !

তোমারই হাতে কি সুভাষ আমি মার খেয়েছিলাম?
দেশব্রতে সিঞ্চিত সেই হৃদয় স্তব্ধ হলো,
তবু মনে পড়ে এই তো সেদিনও, রাজা শক্তিমান,
বিপ্রতীপে তোমার স্পর্ধা ইকারাসের মত,
আকাশ ভাঙছে, যুদ্ধে হানছে, ঝড়ের পূর্বাভাস,
স্বর্গের সব কেল্লা ভাঙবে, শত জনমের ঋণ,
ক্রুদ্ধ কণ্ঠে দাবী শুধু সেই স্বাধীনতা স্বাধীনতা!
আকাশও আজ নতমস্তক, তোমার স্পর্ধা দেখে,
ইকারাসের মতই তুমি মিলালে সাগরজলে।
তোমারও পাখা সূর্যের তাপে গলে গেল আজ বুঝি,
দেশব্রতির হৃদয় অনলে ধিকি ধিকি ধিকি ধিকি,
ভারতের যেন বুকে পাঁজরে জ্বলছে অগ্নিশিখা,
আজও যেন তার সহস্র সেনা বিজয় নিশান নিয়ে।

(বাংলায় তর্জমা আমার।)

Leave a comment

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: