আমি সাধারণতঃ দুটো কোকাকোলা নিয়ে বসি। ৫০০ মিলির কোক। কনফারেন্স রুমে চলে যাই। সাথে থাকে ল্যাপটপ, ট্যাব, ফোন, ইত্যাদী ইত্যাদী। চেয়ারে সিধা হয়ে বসি। পরণে শার্ট, প্যান্ট, জুতো। রীতিমত ফর্মালস।

 
এভাবে রাতের পর রাত চলে যায়। কারণ দিনের বেলা ইউনিভার্সিটি থাকে। সেখানে ক্লাস, পড়ানোর ফাঁকে কফি গিলতে থাকি ঘড়ি ঘড়ি। যে করে হোক চোখটা টানটান খোলা থাকা চাই। বিকেল ছটা নাগাদ শরীর জবাব দেয়। ঘন্টা তিনেক ঘুমোনোর পরেই মস্তিষ্কে কেমন যেন পাগলাঘন্টি বাজতে থাকে। হুড়মুড় করে উঠে দেখি দেরি হয়ে গেছে।
 
রাত্তির নটার পর ভারতীয় রেস্তোরাঁ ‘মহারাজা’ বন্ধ হয়ে যায়। রাস্তায় নেমে সেই এক ডিলেমা। খাবো কোথায়? মরিয়া হয়ে গুগুল করি ‘রেস্টোরেন্টস নিয়ারবাই’। তারপরই খেয়াল হয়, এতো সব বন্ধ দোকানের খবর দিচ্ছে। অতএব ফিল্টার লাগাই ‘ওপেন নাউ’। তারপর একটু ব্রাউস করে গুগুল বন্ধ করে দিই। এতো অপশন দেখে তো মাথা খারাপ হয়ে যাবে!
 
সামনেই ‘মা ফিশার্স’। সেখানেই যাওয়া যাক।
 
মা ফিশার্স খোলা থাকে চব্বিশ ঘন্টা। রাত দশটার পর সেখানে বহু জনগণের সমাগম হয়। লোকে সিনেমা দেখে ফিরছে। বা পাব থেকে। আমি একটা বুথ দখল করে নিই। মেক্সিকান এক তরুণ কফি বাগিয়ে ধরে। রাতটা জাগব। অতএব ইয়েস। কফি দাও।
 
একটি মার্কিণ তরুণী বেশ ব্যাজার মুখে হাসি ফুটিয়ে ছোটাছুটি করে বেড়াচ্ছে। আজ বোধহয় সারারাত ডিউটি। খানিক পরে সে আমার কাছে মেনু নিয়ে আসে। আবারো সেই একই ঝামেলা। কতরকমের চয়েস। এবং সব কটাই বেশ বাজে খেতে।
 
কোনোক্রমে খাওয়া সাঙ্গ করে কাজে ঢুকি। সেই কনফারেন্স রুম। সেই ল্যাপটপ। মগজে যেন পাগলা ঘন্টি বাজছে। কি যেন সব করে ফেলতে হবে। দুট কোক ৫০০ মিলির টেবিলে ধীরে ধীরে ক্ষয় পেতে থাকে।
 
বাইরে আলো ফুটে এসেছে।

Leave a comment

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: